15.4 C
Durgapur
Friday, January 22, 2021

করোনার থাবা বীরভূম ডিএম অফিস ও সিউড়ি সদর হাসপাতালে আতংকিত সাধারণ মানুষ

নিজস্ব প্রতিনিধি, জেলার খবর, সিউড়ি: যতই দিন যাচ্ছে করোনা (COVID-19) যেন ধীরে ধীরে গ্রাস করছে গোটা বীরভূম জেলাকে। দিনকে দিন করোনা (COVID-19) আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে গোটা বীরভূমে । এবার করোনার (COVID-19) কবলে প্রশাসনিক ভবন এবং সিউড়ি সদর হাসপাতাল । ফলে দুশ্চিন্তা বাড়ছে স্থানীয় বাসিন্দাদের । করোনা সংক্রমনের প্রথমদিকে প্রশাসনিক তৎপরতা তুঙ্গে থাকায় কিছুটা রাশ টানা হয়েছিল কিন্তু সরকারের আনলক পর্বগুলিতে সে রাশ যে একেবারেই ঢিলেঢালা তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ফলে বাঁধনহারা মুক্তির স্বাদ পেতে সাধারণ মানুষ বেরিয়ে পড়েছেন বাড়ির বাইরে । রাজ্য সরকার যে নির্দেশিকা জারি করেছে সেই নির্দেশিকা পুরোপুরি এখন বিষ বাওঁ জলে , আর ফল যা হবার তাই হচ্ছে ।

বীরভূমের সিউড়িতে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা । বীরভূম জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, নানা উদ্যোগ ইতিমধ্যে গ্রহণ করলেও, সিউড়ি শহরের অধিকাংশ মানুষ এখন রাস্তায় মাস্ক ব্যবহার করার চিন্তাভাবনাই ভুলে গেছেন। শুধু তাই নয় যারা ব্যবহার করছেন তারা পুরোপুরি নাকমুখ ঢাকছেন না । এতকিছুর পরও থেমে নাই রাজনৈতিক দলের বিভিন্ন কর্মসূচি। আর তার ফলেই সাধারণ মানুষ থেকে রাজনৈতিক দলের কর্মী সমর্থকরা ভিড় করছেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। সেখানে পুরোপুরি মানা হচ্ছে না করোনার আচরণ বিধি। আর এটাই করোনা মোকাবিলায় অন্তরায় হয়ে দাঁড়াচ্ছে ।

রাজ্য সরকারের নির্দেশ মত করোনার আচরণবিধি মেনে চললে করোনার হাত থেকে অনেকটাই রক্ষা পেতে পারে সাধারণ মানুষ-এমনটাই মনে করছেন সিউড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসক ডক্টর শৈবাল মজুমদার । প্রশাসন ভবন চত্বরে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ আসেন । মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হলেও অনেকেই তা মানছেন না ,আর সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়ে পড়েছেন জেলা প্রশাসন ভবনের ডেপুটি কালেক্টর ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট সহ প্রথম সারির কিছু আধিকারিক এবং কর্মীরাও ।

ইতিমধ্যেই জেলা প্রশাসন ভবনের দুই কর্মীর মৃত্যুরও খবর মিলেছে । আবার সদর মহকুমা শাসক সহ অনেক আধিকারিক এর মত, অনেক কর্মী মধ্যেই ইতিমধ্যে করোনার লক্ষণ দেখা দেওয়ায় তারা হোম আইসোলেশন এ রয়েছেন । আবার এর মধ্যে অনেক সুস্থও হয়ে উঠেছেন। করোনা আবহে কার্যত জেলা প্রশাসন ভবন এখন সাধারণ মানুষের কাছে অনেকটাই ভয়ের জায়গা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষ নিজেদের কাজ নিয়ে যেতে সেখানে ভয় পাচ্ছেন।

শুধু জেলা প্রশাসন ভবন নয় সাধারণ মানুষকে চিকিৎসা দিতে যারা এগিয়ে আসেন সেই সিউড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসক নার্স কর্মীরাও আজ অনেকেই আক্রান্ত, ফলে সিউড়ি সদর হাসপাতাল এখন রীতিমতন আতঙ্কের জায়গা হয়ে উঠেছে সাধারণ মানুষের কাছে।

সামনেই বাঙালির সবথেকে বড় উৎসব দুর্গাপূজা। তার আগে সাধারন মানুষের করোনা সম্পর্কে অনীহা, বিপদের কারণ হয়ে উঠতে চলেছে বলেই মনে করছেন চিকিৎসকদের একাংশ ,আর তা যদি সত্যি হয় তবে পুজোর আগে কিংবা পুজোর পরেই গোষ্ঠী সংক্রমণ এর রূপ নিতে পারে গোটা সিউড়ি ,সেই আশঙ্কাই এখন গোটা বীরভূম জেলা জুড়ে।

এই মুহূর্তে

x

php shell shell indir hacklink ko cuce