28.4 C
Durgapur
Sunday, August 1, 2021

করোনার জেরে বরাত নেই , তাঁতী পাড়ায় বিষাদের সুর

সোমনাথ মুখার্জী, লাউদোহা: করোনা আবহে বন্ধ রয়েছে কাঁচামালের জোগান । মেলেনি উৎপাদনের বরাত, জোটে নি সারকারি সাহায্য । এই পরিস্থিতিতে কোনোক্রমে দিন কাটছে গৌরবাজার এলাকার তাঁতশিল্পীদের (Weavers)। আর্থিক অনিশ্চয়তার কারণে অন্য পেশার দিকে ঝুঁকছে নতুন প্রজন্ম ।

দুর্গাপুজো দোর গোড়ায় চলে এলেও মন ভালো নেই গৌরবাজার এলাকার তাঁত শিল্পীদের (Weavers) । কাঁচামালের অভাব আর মহাজনেদের কাছ থেকে বরাত না আসায় আশঙ্কায় দিন কাটছে তাঁত শিল্পী পরিবারগুলির ।

লকডাউনের কারণে অনেকেই কাজ হারিয়েছেন , অনেকে আবার বদলে ফেলেছেন নিজেদের জীবিকা । আবার অনেকের জীবনে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা’। তাঁতশিল্পীদের (Weavers) জীবনও তার ব্যতিক্রম নয় । করোনার প্রভাব পড়েছে তাদের জীবিকাতেও । তাই পুজোর মরসুমেও মন ভালো নেই তাঁত শিল্পীদের । লাউদোহা ব্লকের গৌরবাজার গ্রামের তাঁতশিল্পীরা এমনটাই জানালেন ।

গ্রামের তাঁতীপাড়ায় প্রায় ৭০ টি তাঁতশিল্পী পরিবারের বাস । তাঁত শিল্পই তাদের জীবিকা । একটা সময় সব কটি পরিবারই বংশ পরস্পরায় এই কাজের সাথে যুক্ত ছিল কিন্তু,পরবর্তী সময়ে এই কাজের কদর ও লাভ কমে যাওয়ায় অনেক পরিবারই পারিবারিক এই পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় যুক্ত হয়েছে । তবুও এখনো পাড়ার পনেরো কুড়িটি পরিবার এই পেশাকে বাঁচিয়ে রেখেছে ।

শিল্পী (Weavers) সন্ধ্যা দালাল, বলরাম দালালরা জানান তারা মূলত তাঁতের ও তসরের শাড়ি, ওড়না ও গামছা তৈরি করেন । একটি কাপড় তৈরি করতে সময় লাগে তিন থেকে চারদিন । এক দিনে বেশ কয়েকটি গামছা তৈরি হয় । এই কাজের কাঁচামাল আসে বিহারের ভাগলপুর ও ওড়িশা থেকে। বাঁকুড়া ও আশপাশের জেলার মহাজনেরা হচ্ছে তাদের ক্রেতা ।

মরসুমের শুরুতেই মহাজনেরা শিল্পীদের অগ্রিম অর্থ ধার হিসাবে দিয়ে যান । উৎপাদিত জিনিস মহাজনদের মারফতে জেলার বিভিন্ন বাজারে পৌঁছে যায় । বলরামবাবু স্মৃতিচারণ করতে করতে বলেন, অতীতে তাঁতশিল্পের কদর ছিল গোটা রাজ্যজুড়ে । তখন দিনরাত প্রতিটি ঘরে শাড়ি-কাপড় তৈরীর কাজ চলত । মহাজনদের আসা-যাওয়া আর মাঁকুর শব্দে গোটা পাড়া গমগম করত । এখন সেসব অতীত, তাঁতশিল্পের সোনালী দিন হারিয়ে গেছে । বাজারে সস্তায় রকমারি শাড়ি চলে আসায় কদর কমেছে বাংলার ঐতিহ্যবাহী তাঁতের শাড়ির ।

শিল্পীদের (Weavers) ক্ষোভ, অন্যান্য শিল্পের সাথে যুক্ত রা সরকারি ভাতা পেলেও তারা সেই ভাতা পাচ্ছেন না । এই প্রসঙ্গে লাউদোহা ব্লকের বিডিও মৃনাল কান্তি বাগচী জানান , শিল্পীদের জন্যই রাজ্য সরকারের ভাতা প্রকল্প রয়েছে । তবে তার সুবিধা পেতে হলে আবেদন করতে হয় । সঠিক পদ্ধতিতে আবেদন করলে গৌরবাজার এলাকার তাঁতশিল্পীরাও যাতে সরকারি ভাতা পান সেই ব্যাপারে তিনি উদ্যোগ নেবেন বলে জানান ।

এই মুহূর্তে

x