27.5 C
Durgapur
Monday, August 2, 2021

আজ ১৬৭ তম হুল দিবস(Hull Day) পালিত হলো সারারাজ্যের পাশাপাশি বাঁকুড়া জেলাতেও

আজ ১৬৭ তম হুল দিবস(Hull Day) পালিত হলো সারারাজ্যের পাশাপাশি বাঁকুড়া জেলাতেও

নরেশ ভকত, বাঁকুড়াঃ আজ ১৬৭ তম হুল দিবস(Hull Day) পালিত হলো সারারাজ্যের পাশাপাশি বাঁকুড়া জেলাতেও। আর এই হুল দিবস (Hull Day)কোন উৎসব নয়, একটা বিদ্রোহের নাম। যে বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল ১৮৫৫ সালে সাঁওতাল ও আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে। ওই দিন সাঁওতাল পরগনার বাসিন্দা ২ ভাই সিধু মুরমু ও কানু মুরমুর নেতৃত্বে শুরু হয়েছিল ইংরেজদের অপশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই। তখন ইংরেজ সরকার এবং তার তাবেদার জমিদার এবং কিছু সুদখোর মহাজন অরণ্য সন্তান আদিবাসী মানুষদের উপর নির্মম ভাবে অত্যাচার চালাত। যারা দিনের-পর-দিন জঙ্গল কেটে জঙ্গল পরিষ্কার করে চাষযোগ্য জমি করে তুলে বেঁচে থাকার সংগ্রাম চালাত তাঁদের উপরেই একসময় ইংরেজ সরকার ও তাবেদার জমিদাররা চরম অত্যাচার শুরু করে। জঙ্গলের বাসিন্দাদের থেকে জোর করে কর আদায় শুরু হয়। সেই অত্যাচারে একসময় দেয়ালে পিঠ ঠেকে যায় আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষদের। তখনই সিধু-কানু এবং তাঁদের আরো দুই ভাই চাঁদ-ভৈরব ও দুই বোন ফুলমণি আর ঝানু মুরমু এই একই পরিবারের ছয় ভাইবোনের নেতৃত্বে শুরু হয় ওই অত্যাচারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ। ইংরেজদের বিরুদ্ধে সেই বিদ্রোহের সূচনা হয়েছিল ১৮৫৫ সালে ৩০ জুন। বহু আদিবাসী মানুষের রক্তের বিনিময়ে সেই বিদ্রোহের আগুন নেভে ১৮৫৬ সালের নভেম্বর মাসে। ইংরেজ সেনাবাহিনীর সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত হয়েছিলেন ৩০ হাজার সাঁওতাল মানুষ। গুলি করে মারা হয়েছিল সিধু-কানু ও চাঁদ-ভৈরবকে। সেই গর্বের ইতিহাসকে ধরে রাখতেই আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে বিশেষ করে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মানুষরা হুল উৎসবের আয়োজন করেন। গোটা রাজ্যের সব জেলার মত বাঁকুড়া জেলাতেও আজ পালিত হলো হুল উৎসব(Hull Day)।গোটা রাজ্যের সাথেসাথে বাঁকুড়া জেলাতেও পালিত হলো হুল উৎসব। সাঁওতাল সম্প্রদায়ের দেবতা মারাংবুরুর পুজো করে এবং বীর সিধু ও কানুর মূর্তিতে মাল্যদান করে এই উৎসব পালন করলেন।

এই মুহূর্তে

x