13.2 C
Durgapur
Wednesday, January 27, 2021

জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠকে বসতে অরাজি বিশ্বভারতী , জট জল্পনা অব্যাহত

শুভময় পাত্র, বীরভূম : বিশ্বভারতীর (Visva-Bharati) সমস্যা সমাধানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে হস্তক্ষেপ করতে বলেছিলেন রাজ্যপাল । সেই মতো মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে বীরভূমের জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা বসু বুধবার বিশ্বভারতীর উপাচার্যকে নিয়ে বৈঠকে বসার সিদ্ধান্ত নেন । কিন্তু বৈঠকে বসতে অরাজি বিশ্বভারতী , এই অবস্থায় সমস্যার সমাধান এখনো অধরা রয়ে গেল ।
বিশ্বভারতীর (Visva-Bharati) এই ভূমিকা নিয়ে নিন্দায় সামিল হয়েছে বুদ্ধিজীবি মহল। মনে করা হচ্ছে প্রশাসন নিজ উদ্যোগে যেখানে সমস্যা মেটাতে উদ্যোগী হয়েছে সেখানে বৈঠকে অংশ না নিয়ে নিজস্ব জেদ বজায় রাখার চেষ্টা করছে বিশ্বভারতী। এইরকম চলতে থাকলে শান্তিনিকেতনের অশান্ত পরিবেশ আদৌ কবে শান্ত হবে তা নিয়ে ধোঁয়াশা রয়েই গেল ।

সোমবার শান্তিনিকেতনে অশান্তির ঘটনায় বিশ্বভারতীর (Visva-Bharati) তরফে বিধায়ক নরেশ বাউড়ি, তৃনমূল নেতা গগন সরকার, অনুব্রত মন্ডলের ছায়াসঙ্গী তথা বোলপুরের প্রাক্তন কাউন্সিলর ওমর সেখ, ব্যবসায়ী সমিতির সুনিং সিং, সুব্রত ভকত সহ মোট ৯ জনের নামে অভিযোগ দায়ের করেছে । যদিও সেই ঘটনায় তৃণমূলের কেউ জড়িত নন বলে মঙ্গলবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে দাবি করেন বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল ।ঘটনার নিন্দা করে বলেন, বিশ্বভারতী সম্পর্কে তিনি অতটা মাথা ঘামাতে চান না ,তাই কিছু বলতে ইচ্ছুক নন। তবে এই কথা বলার পাশাপাশি তিনি এও জানিয়েছেন যে , বর্তমানে যিনি বিশ্বভারতীর দায়িত্বে আছেন তিনি রবীন্দ্রনাথকে শেষ করে দিতে চাইছেন । নাম না করে ইঙ্গিতে তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন যে বিজেপি পরিচালিত বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তিনি তার ইচ্ছামত কাজ করছেন । বোলপুরের মানুষের আবেগ ও রবীন্দ্রনাথের প্রতি ভালোবাসার মর্যাদা তিনি দিচ্ছেন না।

প্রসঙ্গত, বেশ কয়েকদিন ধরে শান্তিনিকেতন মেলার মাঠ ঘিরে ফেলা নিয়ে বিশ্বভারতী (Visva-Bharati) কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বোলপুর ব্যবসায়ী সমিতি ও স্থানীয় লোকজন, প্রবীণ আশ্রমিকদের আন্দোলনে অশান্ত হয়ে ওঠে শান্তিনিকেতনের পরিবেশ। উচ্চ আদালতের সম্মতি নিয়ে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ তাদের নিজস্ব জায়গা ঘিরে ফেলতে চাইলে বোলপুর শান্তিনিকেতনের মানুষ যারা শান্তিনিকেতনের মেলার মাঠকে তাদের আবেগের জায়গা বলে মনে করেন তারা বিরোধিতা শুরু করেন। ক্রমেই জটিল হয়ে ওঠে পরিস্থিতি।

প্রথমদিকে বিশ্বভারতীর ঠিকাদারকে হেনস্থা করে বন্ধ করে দেওয়া হয় নির্মাণকার্য। দ্বিতীয় দিন বিশ্বভারতী তার দলবল নিয়ে কাজ শুরু করার চেষ্টা করলে স্থানীয় লোকজন ও প্রবীণ আশ্রমিকরা যৌথভাবে আন্দোলন করে পুনরায় তা বন্ধ করে দেন । তৃতীয়দিনে সেই আন্দোলন আরো বৃহত্তর আকার নেয় । বোলপুর ও তার আশপাশের মানুষ , প্রবীণ আশ্রমিকরা একত্রিত হয়ে যৌথভাবে আন্দোলনে নামেন । বুলডজার দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় বিশ্বভারতীর মেলার মাঠের গেট । বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, গতকালের এই ঘটনায় তাদের কোনওরকম সাহায্য করেনি বোলপুর পুলিশ । এই পরিস্থিতিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্বভারতী (Visva-Bharati) বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেন কর্তৃপক্ষ ।

এই মুহূর্তে

x

php shell shell indir hacklink ko cuce