28.4 C
Durgapur
Sunday, August 1, 2021

হাথরাস গণধর্ষণ কাণ্ডে নয়া মোড়, চাপের মুখে পরে অবশেষে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ যোগী সরকারের

ডিজিটাল ডেস্ক, জেলার খবর : অবশেষে নতি স্বীকার যোগী সরকারের। গত ১৪ই সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাস এ ২২ বছরের এক দলিত যুবতীর সাথে যে নারকীয় ঘটনা ঘটে যায় (hathras gang rape) তার প্রতিবাদে মুখর এখন গোটা দেশ। দেশের সমস্ত বিজেপি বিরোধী দলগুলির কাছে এখন রাজনীতির তুরুপের তাস এই ঘটনা (hathras gang rape)। আর তার ফলেই রাজনীতির কারবারিরা এখন হাথরাস গণধর্ষণ মামলায় (hathras gang rape) কি করে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার তথা উত্তরপ্রদেশের যোগী সরকারকে তুলোধনা করবে তা এখন সবথেকে বড় বিষয়।

একদিকে যখন গোটা দেশ প্রতিবাদে সরব, তখন মুখমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ একপ্রকার রাফ এন্ড টাফ এর ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। কোনোভাবেই যেন সংবাদমাধ্যম সহ দেশের বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করতে না পারে, এরজন্য গোটা গ্রামে ১৪৪ ধারা লাঘু করা হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে। আটকে দেওয়া হয় নির্যাতিতার গ্রামে ঢোকার মূল রাস্তা। এমনকি করোনার দোহাই দিয়ে সংবাদমাধ্যমকেও আটকে দেওয়া হয়। একপ্রকার নির্যাতিতার গোটা পরিবারকে নজরবন্দি করে রাখা হয় এই কদিন। আর এতেই প্রতিবাদের আগুন একনিমিষে ছড়িয়ে পরে গোটা দেশে। কংগ্রেস একপ্রকার কোমর বেঁধে নেমে পরে নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করার জন্য। কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী নির্যাতিতার গ্রামে ঢুকতে গেলে প্রশাসনের বাঁধার মুখে পড়তে হয় তাকে। এরপর রাহুল গান্ধী টুইট করে জানান পৃথিবীর কোন শক্তিই তাকে নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করতে আটকাতে পারবে না।

সূত্রের খবর এরপর রাহুল ও প্রিয়াঙ্কা আজ অর্থাৎ শনিবার ফের নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করতে যান। যদিও আজ তাদের কোনরকম বাঁধার মুখে পড়তে হয়নি নির্যাতিতার পরিবারের সাথে দেখা করার জন্য। তারা অফ ক্যামেরা পরিবারের সাথে কথা বলেন বলে সূত্রের মাদ্ধমে জানা গেছে।

এদিকে দেশের সমস্ত বিজেপি বিরোধী দলগুলিকে চুপ করতে মাস্টার স্ট্রোক খেলেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। শনিবার রাত ৮টা ৩০ মিনিট নাগাদ তার দফতর থেকে একটি টুইট করে জানান হয় যে এই নারকীয় ঘটনার সম্পূর্ণ সিবিআই তদন্তের নির্দেশে সিলমোহর লাগান যোগী সরকার।

যদিও সূত্রের খবর, এই সিবিআই তদন্তের নির্দেশে একেবারেই নাখুশ নির্যাতিতার পরিবার। তাদের দাবি না তাদের পুলিশ এর ওপর আর না তাদের SIT টীম এর ওপর ভরসা আছে। তাদের দাবি এই ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত হোক যাতে নির্যাতিতার পরিবার সঠিক বিচার পায়। কঠোর থেকে কঠোর তাম শাস্তি যেন হয় ধর্ষকদের।

এদিকে শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী আজ রাত ৯ টা নাগাদ নির্যাতিতার পরিবারের সাথে আবারও দেখা করতে আসে SIT টীম। আর এখানেই প্রশ্ন দানা বাঁধছে যে যখন সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যোগী সরকারের পক্ষ থেকে সেখানে ঘটনাস্থলে কি করছে SIT টীম ?

এই মুহূর্তে

x